পরিচিতি ||| রংপুর সিটি কর্পোরেশন
খবর:
    পবিত্র ঈদ-উল আযহা ২০১৮ তে যত্রতত্র পশু কোরবানীরোধে ও বর্জ্য অপসারণ বিষয়ে মত বিনিময় সভা     মশক নিধণ কার্যক্রমকে গতিশীল করার লক্ষে আরো একটি ফগার মেশিন রংপুর সিটি কর্পোরেশনে সংযোজন     কোরবানীর পশু নির্দিষ্ট স্থানে জবেহকরণ ও দ্রুত অপসারণ বিষয়ক সংবাদ সম্মেলন     উত্তম বাওয়াইপাড়াস্থ ঘাঘট নদীর উপর কালুর ঘাট ব্রীজের শুভ উদ্বোধন     গত ১৫ ই আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩ তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে নগরীর বঙ্গবন্ধু মুরালে পুষ্পমাল্য প্রদান করেন রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা।     রংপুর সিটি কর্পোরেশনে গর্ভবতী মা ও নবজাতক শিশুর টিকা ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের উদ্বোধন     সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ রংপুর-এ ফ্রি ওয়াই-ফাই জোন উদ্বোধন
প্রথম পাতা কাউন্সিলর পরিচিতি নগর পরিকল্পনা
পরিচিতি
মোঃ মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা
জনাব মোঃ মোস্তাফিজার রহমান (মোস্তফা), পিতা- আলহাজ্ব মামদুহুর রহমান, সাং- কলেজ রোড (শান্তিবাগ),  মোস্তাফিজার রহমান (মোস্তফা), ১৯৭৯ সালে কারমাইকেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ হতে (বিজ্ঞান বিভাগে) স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন। ছাত্র জীবন থেকেই তিনি ছাত্র রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে জড়িয়ে পড়েন। তিনি ১৯৮৩-১৯৮৪ সালে কুমরগঞ্জ দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে (বি.এস.সি)শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতা শুরু করেন এবং পরবর্তীতে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের একজন প্রথম শ্রেণীর ঠিকাদার হিসেবে ব্যবসা শুরু করেন। এর পাশাপাশি তিনি সমাজ সেবামূলক বিভিন্ন কাজে নিজেকে জড়িয়ে রাখেন। ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর সাবেক রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব হুসেইন মুহাম্মাদ এরশাদের ক্ষমতা ত্যাগের পর যখন তাঁকে জেলে বন্দি অবস্থায় অনুষ্ঠিতব্য সংসদ নির্বাচনে তার মনোনয়ন অবৈধ ঘোষণা করা হয় তখন রংপুরের সর্ব স্তরের জনতা এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে এবং মনোনয়নপত্র বৈধ করার আন্দোলনে প্রস্তুতি গ্রহণ করে। ১৯৯১ সনের ১২ই জানুয়ারী এরশাদের মনোনয়ন পত্র বৈধ করার দাবীতে দুর্বার আন্দোলনে হাজারো সাহসী যোদ্ধার সাথে মোঃ মোস্তাফিজার রহমান (মোস্তফা), সামিল হন এবং সরকারি পেটোয়া বাহিনী কর্তৃক অমানুষিক নির্যাতনে মুমূর্ষু অবস্থায় তিনি সহ ৫৮ জন গ্রেফতার হন। জেল থেকে মুক্ত হওয়ার পর জাতীয় পার্টির একজন সক্রিয় কর্মী, পরবর্তীতে ১৯৯৪ সনে গঠিত জেলা কমিটিতে সদস্য হিসেবে অন্তর্ভূক্ত হন। পর্যায়ক্রমে জাতীয় পার্টি পৌর নির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ৮ বৎসর, সদর উপজেলা কমিটির সভাপতি হিসেবে ৩ বৎসর, জেলা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ২ বৎসর ৬ মাস , জেলা  সদস্য সচিব হিসেবে প্রায় ২ বৎসর এবং ২০০৯ সালে বিপুল ভোটে রংপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেন।

রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন/২০১২ তে দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ার পরও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে ৭৮৬০০ ভোট দিয় রংপুরবাসী মোঃ মোস্তাফিজার রহমান (মোস্তফা)-কে,  রংপুরে একজন জনপ্রিয় প্রতিনিধি হিসেবে সম্মানিত করেন যার ফলশ্রূতিতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হুসেইন মুহাম্মাদ এরশাদ পুনরায় তাঁকে জাতীয় পার্টি রংপুর মহানগরের সভাপতি এবং কেন্দ্রিয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেন। পার্টিকে পুনরায় সু-সংগঠিত ও শক্তিশালী করার স্বার্থে মগানগরের দায়িত্ব গ্রহণসহ সকল দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

রাজনীতির পাশাপাশি অবহেলিত রংপুরের ন্যায্য অধিকার আদায়ের জন্য সমমনা সংগঠকদের নিয়ে রংপুর বিভাগ , বিশ্ববিদ্যালয়, শিক্ষাবোর্ড এবয় পাইপলাইনের মাধ্যমে গ্যাস সরবরাহের  চার দফা দাবীতে একটি অরাজনৈতিক সংগঠন ?রংপুর উন্নয়ন পরিষদ? গঠন করেন। তিনি উক্ত সংগঠনের আয়বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং আমার সংগঠনের সদস্য সচিব ও সকল সদস্যসহ রংপুরের সর্ব স্তরের জনতার স্বতঃস্ফুর্ত সমর্থন নিয়ে তাদের ন্যায্যদাবী আদায়ের লক্ষ্যে জোরদার আন্দোলনের মাধ্যমে তাঁরা রংপুর বিভাগ ও বিশ্বাবিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হন। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান,ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত।
২০১৭ সালে রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে প্রায় লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করে বর্তমানে কর্তব্যরত আছেন।
মেয়র মহোদয়

প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা

সচিব

  Total Visitor
Visitor Online